বাড়িতে ওয়াইফাই ব্যবহারের কারণে শরীরে নানা সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। বিশেষ করে শিশুদের স্বাস্থ্য বেশি ঝুঁকির মুখে পড়ছে। এমন মন্তব্য করেছেন গবেষকরা। অনলাইনে সক্রিয় থাকতে এখন প্রায় বাড়িতেই ওয়াইফাই ব্যবহার হচ্ছে।
সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের গবেষণায় ক্ষতিকর ৫টি বিষয় উল্লেখ করা হয়, যেমন –
১. ইনসমনিয়া বা নিদ্রাহীনতায় ভোগা। বিশেষজ্ঞদের মতে, স্মার্ট ফোন বা ওয়াইফাই থেকে বের হওয়া রেডিয়েশন ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। আর ঘুম না হলে স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়।
২. ওয়াইফাই ডিভাইস থেকে নির্গত হওয়া রেডিয়েশনে গর্ভস্থ ভ্রুণের বিকাশ প্রভাবিত হয়। শিশুদেরও স্বাভাবিক বিকাশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
৩. নিয়মিত ওয়াইফাই ব্যবহারে ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে। এর রেডিয়েশনে আলঝাইমার রোগের সম্ভাবনা বাড়ে।
৪. একনাগাড়ে ওয়াইফাই ব্যবহারে হৃদরোগজনিত সমস্যা তৈরি হতে পারে।
৫. ওয়াইফাই ব্যবহারে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা কমে যায়।
ওয়াইফাই দৈনন্দিন জীবনে যেহেতু গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে তাই এর রেডিয়েশন থেকে বাঁচতে ৩টি পদক্ষেপ নেওয়ারও পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা, যেমন –
১. গর্ভাবস্থায় স্মার্ট ফোন ব্যবহারে সতর্ক থাকতে ফোনটি যথাসম্ভব দূরে রাখতে হবে। এতে গর্ভের সন্তান ওয়াইফাইয়ের ক্ষতিকর রেডিয়েশন থেকে বাঁচবে।
২. যতক্ষণ ঘরের ওয়াইফাই চালু থাকবে ততক্ষণই রেডিয়েশন হবে। তাই ঘুমানোর আগে ওয়াইফাইয়ের সুইচ বন্ধ করে রাখতে হবে।
৩. ওয়াইফাই থেকে বের হওয়া রেডিয়েশনের মাত্রা কমাতে চাইলে রাউটার রান্নাঘর বা শোবার ঘরে রাখা যাবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here